Home

রেনেসাঁসের সন্ধিক্ষণে শ্রী শ্রীরামকৃষ্ণদেব ও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

রেনেসাঁসের সন্ধিক্ষণে শ্রী শ্রীরামকৃষ্ণদেব ও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর/ / লেখক – রঞ্জনা রায় বিশেষ নিবন্ধ রেনেসাঁসের সন্ধিক্ষণে শ্রী শ্রীরামকৃষ্ণদেব ও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রঞ্জনা রায় শ্রী শ্রীরামকৃষ্ণদেব ও

Read More »

একফালি চাঁদ, নজরুল ও বিবর্ণ ঈদ

একফালি চাঁদ, নজরুল ও বিবর্ণ ঈদ —————————————— লেখকঃ পুলক মন্ডল ঈদের সকালের খুশি উপচে পড়ে মিলেমিশে যায় এক মহাকবির কথায়-কাব‍্যে। তেমনটাই তো হওয়ার কথা ছিল !

Read More »

বাউল বাতাস

উপন্যাস বাউল বাতাস সুদীপ ঘোষাল পূর্ব বর্ধমান জেলার সিঙ্গি গ্রাম। এটা আঠারো পাড়া গ্রাম। আঠেরোটা পাড়া আছে গ্রামে। কোনোটা তাঁতিপাড়া কোনোটা জেলেপাড়া দাসপাড়া পোটোপাড়ার লোক পট

Read More »

ত্যাগ

ত্যাগ নয়ন মালিক যাদব আধঘন্টা ধরে প্লাটফর্মে বসে বসে শুধু দেখছে আর শুনছে । মেয়েলি কন্ঠে এনাউন্স হচ্ছে, বিপুল শব্দের সম্ভার নিয়ে ট্রেন আসছে, থামছে আবার

Read More »

মনুষ‍্য জীবন

শিরোনাম :-মনুষ‍্যজীবন কলমে:-সুপ্রিয়া দে তারিখ:-১৩/০৫/২১ ————————- সব কথার মাঝে গোপন কিছু লুকিয়ে থাকে, কিছু ব‍্যথা শুধুই যন্ত্রণার কারণ হয়ে থাকে আনন্দ না নীল রংটায় বেদনা লুকিয়ে

Read More »

বুমেরাং

#বুমেরাং #শম্পা_সাহা “মন্টু, শুনলাম নাকি ওই নীল দোতলা বাড়ির ছোট ছেলেটার করোনা হয়েছে?” “হ‍্যাঁ জেঠিমা আমিও তাই শুনলাম।” “হবে না ,চোপর দিন মোটরসাইকেলে কাঁধে সিলিন্ডার মিলিন্ডার

Read More »

ঈশ্বরায়ন ঘটাতে গেলে

ঈশ্বরায়ন ঘটাতে গেলে সুপ্রভাত মেট্যা প্রতিটি ভালো না-লাগার জন্য এক-একটি ভালোবাসাই দায়ি। মনখারাপের অলো ,অন্ধকার ছেয়ে গেলে তবেই বৃষ্টি নেমে আসে ঘরে। প্রত্যেক মানুষেরই কোনও না

Read More »

মিথ্যার জয়

মিথ্যার জয়। ছন্নছাড়া। “হ্যালো, অণুরাধা দেবী বলছেন?” “হ্যাঁ, বলছি। ” “থানা থেকে বলছি। আপনাকে একবার থানায় আসতে হবে।” “কেন? আমি কি করেছি?” “না, আপনি কিছু করেন

Read More »

আখ্যানকাব্য

আখ্যানকাব্য “””””””””””””””””””””””””””””””””” সৌম্য ঘোষ ——————————— STORY AND ARTICLE : আখ্যানকাব্য ___________________ সৌম্য ঘোষ ___________________ “আখ্যান” শব্দের অর্থ হল স্বল্প আয়তন কাহিনী বা গল্প। কোন বস্তুকে অবলম্বন

Read More »

বুমবুম

বুমবুম // মাধব মন্ডল বছরটা না ঘুরতে ঘুরতে হাঁটছি আমি এই টিমা টিম গুগল যদি হিসেব কষে দেখতে পেতে এই সীমাসীম এক দাদু তো বলেই দিল

Read More »

শিরোনাম- শেষ চিঠি লেখক- মো. রিয়াজুল ইসলাম

রাতের আঁধার কেঁটে গিয়ে সবে চারিদিকে আলো ফুটতে শুরু করেছে। এমন সময় সাধারণত আমি বিছানা ছেড়ে উঠি না। ঘুম ভেঙে গেলেও আরও কিছুক্ষণ ঘুমোবার আশায় ঘাপটি

Read More »

ঈদ শুভেচ্ছা

ঈদ শুভেচ্ছা শ্রী রাজীব দত্ত রমজানের পবিত্র মাসে শেষের দিনে এক ফালি চাঁদ যখন ভেসে আসে মনের তে খুশির জোয়ার আনন্দে আত্মহারা খুশির ঈদে মন উঠুক

Read More »

পায়েস – মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ

বাড়িওলার মেয়েটার দিকে তাকানোর অপরাধে বাড়িওলাপত্নি র তেতে ওঠা মুখটার ভূগোলে ব্যাপক আক্রোশ দেখা গিয়েছিল,আজ সেই মেয়েটা কিনা এক বাটি পায়েশ এনে গদগদ হয়ে বলছে—এবছর আব্বু

Read More »

আজি বসন্তে – শেষ পর্ব // সুব্রত মজুমদার

#আজি_বসন্তে (শেষ পর্ব ) #সুব্রত_মজুমদার জগাইয়ের কথায় মালাজপা থেমে গেল বোষ্টমীর। জপের থলেটাকে কপালে ঠেকিয়ে সে বলল,”রাধামাধব কি আমার একার রে বাবা, সে তো সবার। আর

Read More »

সত‍্যি মিথ‍্যা

#সত‍্যি_মিথ‍্যা #শম্পা_সাহা যতখানি সত‍্যি বললে ভালো হওয়া যায় তার চেয়ে বেশি সত‍্যি বলা বোধহয় ভালো হলো না কোনোদিন তাই তো সূর্য কে স্থির বলায় বন্দি গ‍্যালিলিও

Read More »

অপরিমিত সুখ

অপরিমিত সুখ মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ 12/5/2021 ^^^^^^^^ অপরিমিত সুখের চাষবাস চলে যেখানে — খাবারের উৎসব রেখে নেমে এসেছো কি খয়েরি ফুটপাতে? অবয়বে জহরতের জৌলুস মননে ঘুণপোকা– শালুক

Read More »

শিরোনাম-প্রকৃতি তনয়া বামী

কবিবর,চৈত্রের রাতে সেদিন তুমি ছিলে ছাতে তোমার ছোট্টমেয়ে বামী ছিল তোমার পাশে। হঠাৎই তার সঙ্গিনীরা খেলতে তাকে ডাকে, সাড়া পেয়ে ভয়ে ভয়ে থেমে থেমে নামে সিঁড়ি

Read More »

ক্ষণিক দেখা

বিষয় :-উদাস প্রাতে কলমে :-সুপ্রিয়া দে তারিখ:-১২/০৫/২১ শিরোনাম :-ক্ষণিকের পথিক উদাস প্রাতে শূন‍্য হৃদয় আজি কোন গহীনের বর্ণমালা আঁকে, স্রোতে ভাসা জীবন নদীর নৌকা শ‍্যাওলা হয়ে

Read More »

নষ্ট মেয়ে

নষ্ট মেয়ে শ্রী রাজীব দত্ত নষ্ট মেয়ে শব্দের মানে কি? শুধু কি একটা শরীরকে বোঝায়? যদি শরীরে একটি পরিচিতি হয়। তবে মানবজাতির মন বা হৃদয় কোথায়?

Read More »

চারুলতা

গাঢ় কমলা রঙের সেলোয়ার-কামিজ পড়ে রাস্তার এক পাশে গুটিশুটি মেরে বসে আছে চারুলতা। গাঢ় কমলা রঙ হওয়ায় রাস্তার সব মানুষের নজরে পড়ছে চারুলতা। কিছু উৎসুক জনতা

Read More »

ব‍্যক্তিত্বের মাতাল

ব‍্যক্তিত্বের মাতাল কলমে সুপ্রিয়া দে তারিখ:-১১/০৫/২১ ———————–” আমি তোমার রূপের মাতাল নই ঐ চোখ, ওষ্টধর আমাকে ব‍্যাকুল করলো কই, তোমার গায়ের গন্ধ কাছে ও টানলো না

Read More »

আরাধনা

আরাধনা কালো মেঘের ঘনঘটায় পড়ে না মনে কালা। বন্ধ ঘরের বন্দী জীবনে নিষেধ খোলা জানালা।। বৃষ্টির হেথায় ছোঁয়া মানা আলতো করের তলে। পবন কেবল নেচে বেড়ায়

Read More »

দৃশ্য ভঙ্গি রৌson আle

একলা সফর কবি= রৌশন আলি যদি তোর ডাক শুনে কেউনা আসে,তবে একলা চল। যদি ভালোকথা শুন্তে কেউ না আসে তবে একলা বল। যদি কেউ কথা না

Read More »

কাবিলার প্রতিদান

#কাবিলার_প্রতিদান পাওনাদার বন্ধু রবির নামটা মোবাইলের  স্ক্রীনে ভেসে উঠতেই কিছুক্ষণ চেয়ে থাকে কাবিলা। রিসিভ করবো করবো করেও রিসিভ করে না । এবারই প্রথম না। এর আগেও

Read More »

ধূসর দিনের মাকড়সা

গল্প — ধূসর দিনের মাকড়সা মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ 12/5/2021 ^^^^^^^^^^^^^^^^^^^ এরকম মডেলের গাড়ি নিয়ে আগে কেউ এলাকায় আসেনি । হাবুর বউটা বারবার তাগাদা দিচ্ছে –কই ওঠো।প্লাস ।ওফ!

Read More »

আজি বসন্তে – পর্ব ১৯ // সুব্রত মজুমদার

#আজি_বসন্তে (পর্ব ১৯) #সুব্রত_মজুমদার একগ্লাস লস্যি নিলেন। বেশ ঘন ও মিষ্টি। উপরে ঘন মিষ্টি দইয়ের স্তর। তার উপরে কাজু পেস্তা কিসমিস ও চেরি। মথুরার পেঁড়া বিখ্যাত।

Read More »

একদিন চলে যাব

এ পৃথিবীর আলো বাতাস আর কোনদিন উপলব্ধি করতে পারবনা, চলে যাব সেই না ফেরার দেশে আসবনাকো আর কোনোদিন কেও আর আমার কথা মনে রাখবে না। তবুও

Read More »

দেহ পসারিণী

দেহ পসারিণী — ছন্নছাড়া। আমার পরিচয় জানতে চান? কি জানবেন বলুন? আমার নাম, ধাম, না কাজের পরিচয়? আমাকে আপনারা চেনেন। আমি আপনাদের সমাজেই থাকি। আমার নাম

Read More »

2 thoughts on “Home”

  1. Md. Kamruzzaman

    পড়ন্ত বিকেল
    রবীন জাকারিয়া

    পড়ন্ত বিকেল ৷ ব্রহ্মপুত্র নদ ৷ রিজার্ভ নৌকো ৷
    যাত্রী আমরা দু’জন বন্ধু ৷ চারিদিকে পানির ছলাৎ-ছলাৎ শব্দ ৷ আর পাড় ভাঙ্গার আওয়াজ ধপ, ধপ, ধপাস ৷ পেড়িয়ে যাওয়া চরগুলোতে শুনতে পাই ৷ হাঁক-ডাক, ছুটোছুটি নবজীবনেব উদ্যোম ৷ নারী-পুরুষ, শিশু-প্রবীন সম্মিলিতভাবে আবারও গড়ে তোলে ভাঙ্গা স্বপ্নের নয়া রাজ প্রাসাদ ৷ জীবন নাটকের একই দৃশ্য বারংবার দেখতে হয় তাদের ৷ বন্যা, নদী ভাঙ্গন, ভেঙ্গে যাওয়া ঘরের অবশিষ্টাংশ, গবাদী পশু, সন্তান-পরিবার নিয়ে এক চর থেকে অন্য চরে আবাস খোঁজা ৷ অনেকে ভীন কোন স্থানে চলে যায় ৷ পড়ে থাকে বেদনাতুর স্মৃতি ৷ পরিচিত বাড়ি, সেই মক্তব, হাজারো বন্ধু ৷ বড় গাছটি ৷ যার তলে বসে গাছ চুন্নি, গোল্লাছুট কিংবা বৌছি খেলা হতো সন্ধ্যে অবদি, মা রাগ করার আগ পর্যন্ত ৷ সবই এখন সর্বগ্রাসি ঐ নদীর বুকে ৷ ওদের বুকে রয়ে যায় বুক ফাটা কান্না ৷

    সময় এখানে থমকে আছে যেন শতাব্দী থেকে শতাব্দী পেছনে ৷ বিদ্যূত নেই, চিকিৎসা, শিক্ষা, যোগাযোগ কিছুই নেই ৷
    অথচ কী নিরাহংকার আর প্রাঞ্জল জীবন-জীবিকা
    ভীষণ ঈর্ষে হয় ৷ তাই নৌকোটাকে দাঁড় করাই, পরিচিত হই, ভাল লাগে ৷ ওরাও আপন করে নেয়৷
    আবার বৃষ্টি পড়তে লাগলো ৷
    ফিরে আসি দাঁড়ানো নৌকোর কাছে ৷
    তাড়াতাড়ি ফিরতে হবে যে ৷
    পেছন থেকে কে একজন ডেকে উঠলো ৷
    ফিরে তাকালাম ৷ এক মধ্য বয়সী নারী তার কিশোরী কণ্যার হাত ধরে এদিকেই আসছে ৷ আমি বললাম, “কিছু বলবেন কি?”
    কিছুটা ইতস্তত বোধ করে বললেন, “বাবা আমার মেয়েটাতো পড়াশুনা করে তাই পাশের চরে ও ওর খালার বাড়ীতে থাকে ৷ তোমরা কি যাওয়ার পথে ওকে ওখানে নামিয়ে দেবে?”
    আমি মেয়েটার তাকাই ৷ অভিভূত হই ৷ এত রোদ, বৃষ্টি, ঝড়-ঝঞ্জা, এত কষ্ট, কোন প্রসাধন নেই ৷ তবুও এত সুন্দর হয় কী করে মানুষ? এটাকেই কি বলে ন্যাচারাল বিউটি?
    মনটা কেমন জানি করতে থাকে ৷ আচ্ছা আমি কি ঘামছি? না আর যাই হোক একে সাথে নিয়ে যাওয়া যাবে না ৷ ভেতরের মানুষটা বলছে “তুই পালিয়ে যা” ৷ আনমোনা হলাম ৷
    বাবা তুমি কি কিছু ভাবছো? মধ্য বয়সী নারীর প্রশ্নে সম্বিত ফিরে পেলাম ৷ বললাম ঠিক আছে, ওকে পৌঁছে দেবো ৷
    মেয়েটিসহ তিনজন উঠে বসলাম নৌকায় ৷ যাত্রা শুরু হলো ৷ পরিবেশটা গুমট লাগলো তাই মেয়েটির নাম জিজ্ঞাসা করলাম ৷ নাম বললো বিউটি ৷ যথার্থই নাম ৷ অদ্ভুত বিষয় হলো এই প্রথম কোন সুন্দর মেয়ের নাম শুনলাম বিউটি ৷ ইতিপূর্বে যত বিউটি দেখেছি সবই ছিল আগলি ৷ যেমন, লাকীকে দেখেছি ভাগ্যহীনা, কটা চোখ অথচ নাম সুনয়না, ভিক্ষুক অথচ নাম রাজা ইত্যাদি ৷ যাহোক পরিবেশটা হালকা করার জন্য ব্যাগে রাখা বিস্কুট, চানাচুর ও অন্যান্য শুকনো খাবার খেলাম একসাথে ৷

    শ্যালো ইঞ্জিন চালিত নৌকোর প্রচন্ড শব্দ আর বাতাশের শোঁ শোঁ শব্দে ভাল করে একে অপরের কথা শুনতে কষ্ট হয় ৷ আমার বন্ধুটি সিগারেট খাবে বলে ছাদে চলে গেল ৷ কী জানি কেন মেয়েটি আরও কথা বলবে বলে গা ঘেঁষে বসলো ৷ বাদাম খাচ্ছি, কথা বলছি ৷ ও হালকা রসিকতায় হেসে উঠছে খিলখিলিয়ে ৷ আমি রোমাঞ্চিত হই কিন্ত প্রকাশ করতে পারিনা কিছুই৷ হঠাৎ করে কেন যে মেয়েটি আমার হাত ধরলো ৷ বোঝার জন্য ওর চোখের দিকে তাকালাম ৷ অবাক হলাম ৷ আচ্ছা চোখ দু,টৌ এমন লাগছে কেন? কেমন ঘোলা ঘোলা ৷ আবেদনে ভরপুর ৷ এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব নয় ৷ কোন পুরুষই তা পারেনা ৷
    পড়ন্ত বিকেল ৷ ব্রহ্মপুত্র নদ ৷ রিজার্ভ নৌকো ৷
    সিগারেট খেতে যাওয়া বন্ধুকে বাদ দিলে ভেতরে যাত্রী আমরা দু’জন ৷ চারিদিকে পানির ছলাৎ-ছলাৎ শব্দ ৷ আর পাড় ভাঙ্গার আওয়াজ ধপ, ধপ, ধপাস ৷ এত আওয়াজের মধ্য থেকে অস্ফুষ্ট গোঙ্গানীর শব্দ কেউই শুনতে পারেনা ৷ এমনকি নৌকোর ছাদে ধুমপানরত বন্ধুটিও না ৷

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Scroll to Top